২০ নভেম্বর ২০১৭ ৮:০:১৩
logo
logo banner
HeadLine
দেশে ১ কোটি ৮০ লাখ মানুষ কিডনি রোগে আক্রান্ত * ৫৭ ছক্কায় ৪৯০ রানের অবিশ্বাস্য রেকর্ড ! * 'রোহিঙ্গাদের ওপর নৃশংসতা যুদ্ধাপরাধ ও মানবাধিকারের মৌলিক লঙ্ঘন' * বিরোধিতার রাজনীতি এবং বিএনপি নেত্রীর ভাষণ * আজ থেকে শুরু হচ্ছে পিইসি-সমাপনী পরীক্ষা * এবারের বিশ্বসুন্দরী ভারতের মানুষী চিল্লার * 'বাংলাদেশকে এগিয়ে নেবো, এটাই হোক আজকের প্রতিজ্ঞা'- প্রধানমন্ত্রী * সন্দ্বীপের গুপ্তছড়া ঘাটে যাত্রীভোগান্তি কমাতে ৪৭ কোটি টাকার জেটি নির্মাণ কাজের উদ্ভোধন * ১৬২ পোশাক কারখানার সঙ্গে ব্যবসায়িক সম্পর্ক ছিন্ন করেছে অ্যালায়েন্স * তারই জনগণের কাছে ক্ষমা চাওয়া উচিত * ৭ মার্চের ভাষণের বিশ্ব স্বীকৃতি উদযাপনে নাগরিক সমাবেশ আজ, সোহরাওয়ার্দীতে প্রধান অতিথি শেখ হাসিনা * গতবারের তুলনায় রেমিটেন্স বেড়েছে ৬.৯ শতাংশ * গত অর্থবছরে দেশে খাদ্য উৎপাদন কমেছে সাড়ে ৯ লাখ মেট্রিক টন * নিম্নচাপ কেটে গেছে * বাংলাদেশী মাহমুদা 'নাসা'র বর্ষসেরা উদ্ভাবক * হাটহাজারীতে সেনাবাহিনীর এপিসি খাদে, নিহত ২ * সন্দ্বীপে অপহরনের পর মুক্তিপণ দাবী, পুলিশি আভিযানে অপহৃত উদ্ধার ও এক মহিলাসহ ৪ অপহরণকারী গ্রেফতার * মিয়ানমারের বিরুদ্ধে জাতিসংঘ কমিটিতে ১৩৫/১০ ভোটে প্রস্তাব পাস * আজ মওলানা ভাসানীর ৪১তম মৃত্যুবার্ষিকী * জাতিসংঘের দুর্বলতার কারণ অযৌক্তিক ভেটো * কাজ করছে না অ্যান্টিবায়োটিক, ভয়ানক বিপদে বাংলাদেশের মানুষ * নিন্মচাপের প্রভাবে গভীর সঞ্চালনশীল মেঘমালার সৃষ্টি, ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত * এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে সিঙ্গাপুরে নেয়া হল মহিউদ্দিন চৌধুরীকে * লঘুচাপটি নিম্নচাপে পরিনত, বৃষ্টি হতে পারে আজও * মাদকবিরোধী আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে - মাশরাফি * খালেদার মানুষ বানানো ও রংপুরের ঘটনা -স্বদেশ রায় * লঘুচাপের প্রভাবে হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা * ধুমপানের কারনে দেশে ৮০ লাখ মানুষ সিওপিডি ও হৃদরোগসহ বিভিন্ন মারাত্মক রোগে আক্রান্ত * প্রধান বিচারপতি নিয়োগে সময়ের কোন বাধ্যবাধকতা নেই: আইনমন্ত্রী * আজ পবিত্র আখেরি চাহার শোম্বা *
     12,2017 Tuesday at 10:08:06 Share

রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে পাশে থাকছে চীন ও ভারত

রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে পাশে থাকছে চীন ও ভারত

রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে বাংলাদেশের পাশে থাকবে চীন ও ভারত। রাখাইনে গণহত্যা দ্রুত বন্ধ ও সংকট সমাধানে কোফি আনান কমিশন বাস্তবায়নে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সহযোগিতা চাওয়া হয়েছে। সোমবার রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় বিদেশী কূটনীতিকদের ব্রিফিং এই সহযোগিতা চাওয়া হয়। এদিকে আগামীকাল বুধবার রোহিঙ্গা পরিস্থিতি দেখতে কক্সবাজার যাচ্ছেন বিদেশী কূটনীতিকরা।


রোহিঙ্গা পরিস্থিতি তুলে ধরতে রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় মঙ্গলবার দ্বিতীয় দফায় দক্ষিণ এশিয়া ও আসিয়ান দেশগুলোর রাষ্ট্রদূতদের নিয়ে ব্রিফিং করা হয়। পররাষ্ট্র মন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী তাদের ব্রিফিং করেন। এসময় পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম ও পররাষ্ট্র সচিব এম শহীদুল হক উপস্থিত ছিলেন।


ব্রিফিং শেষে সচিব এম শহীদুল হক সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে বলেন, চীন ও ভারত আমাদের ভাতৃপ্রতিম দেশ। এই দুঃখকালীন, কষ্টকালীন সময়েও তারা আমাদের পাশে থাকবে, আগে যেভাবে থেকেছে।


বিদেশী কূটনীতিকদের ব্রিফিংয়ের বিষয়ে জানতে চাইলে পররাষ্ট্র সচিব জানান, মিয়ানমারের রাখাইন থেকে সাত লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা নাগরিক বাংলাদেশে প্রবেশ করেছেন। এরপর থেকে যে মানবিক বিপর্যয়ের উদ্ভব হয়েছে, সে বিষয়ে তাদের কাছে বিস্তারিত তুলে ধরেছেন পররাষ্ট্র মন্ত্রী। আমরা রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে কোফি আনান কমিশনের পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়ন চেয়েছি। আমরা তাদেরকে পূর্ণাঙ্গভাবে এই কমিশনের প্রতিবেদন দ্রুত ও শর্তহীন বাস্তবায়নে সহযোগিতা চেয়েছি।


এক প্রশ্নের উত্তরে পররাষ্ট্র সচিব বলেন, বিদেশী কূটনীতিকদের আমরা বলেছি, ওখানে যে কনফ্লিক্ট হচ্ছে, রোহিঙ্গাদের ওপর অত্যাচার চলছে, এটা দ্রুত বন্ধ করতে হবে। যেন রোহিঙ্গাদের আসা বন্ধ হয়। কোফি আনান কমিশনে যেটা আছে, সে অনুযায়ী রোহিঙ্গাদের ভেরিকেশন করে তাদের জাতীয় পরিচিয় নিশ্চিত করার কথাও আমরা বলেছি।


বিদেশী রাষ্ট্রদূতদের পক্ষ থেকে কি ধরণের সাড়া পাওয়া গেছে, জানতে চাইলে পররাষ্ট্র সচিব বলেন, এখানে যারা এসেছেন, তারা সকলেই উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। সকলেই বাংলাদেশের পাশে থাকবার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। এছাড়া রোহিঙ্গারা যারা এখানে আছেন, তাদের সহযোগিতা করতে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন।


মিয়ানমারের পক্ষ থেকে কি ধরণের সাড়া পাওয়া গেছে জানতে চাইলে, পররাষ্ট্র সচিব বলেন, মিয়ানমার থেকে এখনো কোনো সাড়া মেলেনি।


ব্রিফিংয়ে ঢাকার মিয়ানমার মিশনের কোনো প্রতিনিধি ছিলেন কি-না জানতে চাইলে পররাষ্ট্র সচিব জানান, ঢাকার মিয়ানমার মিশনকে ব্রিফিংয়ে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি। সে কারণে দেশটির কোনো প্রতিনিধি ছিলেন না।


কয়েক দশক ধরে বাংলাদেশ ৪ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গার ভার বহন করে চলেছে সম্প্রতি আরও তিন লাখের মতো রোহিঙ্গা আশ্রয় নিয়েছে। বাংলাদেশের পক্ষ থেকে আগের রোহিঙ্গাদের ফেরত নিতে আহ্বান জানিয়ে আসা হলেও তাতে কোনো সাড়া দেয়নি মিয়ানমার।


নতুন করে রোহিঙ্গা স্রোত আসার পর বাংলাদেশ মিয়ানমারের মধ্যে রোহিঙ্গাদের জন্য একটি ‘সেফ জোন’ প্রতিষ্ঠার প্রস্তাব দেয়া হয়েছে। পাশাপাশি সন্ত্রাস দমনে সীমান্তে যৌথ অভিযান চালাতেও মিয়ানমারকে প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে।


এদিকে বাংলাদেশে আসা রোহঙ্গাদের ত্রাণ সহায়তার জন্য বেশ কয়েকটি দেশ ত্রাণসামগ্রী পাঠাচ্ছে। এসব দেশের মধ্যে রয়েছে ইন্দোনেশিয়া, মরক্কো, আজারবাইজান, তুরস্ক, মালয়েশিয়া ইত্যাদি।

User Comments

  • জাতীয়