২১ জানুয়ারি ২০১৮ ২০:২৯:১৭
logo
logo banner
HeadLine
অ্যাজমা বা হাঁপানি : কেন হয়? লক্ষন ও চিকিৎসা * শেষ হল ৫৩তম বিশ্ব ইজতেমার আনুষ্ঠানিকতা * নব্য সুশীলদের অযাচিত বিরোধিতা বনাম উন্নয়নের রাজনীতি * স্বপ্ন পূরণ করেন শেখ হাসিনা * সক্ষমতা অনুযায়ী প্রবৃদ্ধি অর্জিত হচ্ছে না, বর্তমান প্রবৃদ্ধি ৭.২৮ শতাংশ * অনিয়ম, প্রতারণা, জালিয়াতির অভিযোগ তদন্তে ৭ হজ এজেন্সীকে মন্ত্রাণালয়ে তলব * গায়ে হলুদের অনুষ্ঠানে উচ্চশব্দে গান বাজানোর প্রতিবাদ করায় প্রতিবেশী বৃদ্ধকে পিটিয়ে হত্যা * পণ্যের গুণগতমান নিশ্চিত করতে রাষ্ট্রপতির আহবান * জেনে-বুঝে পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ করুন : অর্থমন্ত্রী * মার্কিন সিনেটে বাজেট বিল ব্যর্থ হওয়ায় সরকার কার্যক্রম অচল * পদ্মা সেতুর মূল কাজের অগ্রগতি ৫৬ শতাংশ * একবার রক্ত পরীক্ষায় শনাক্ত হবে সব ধরনের ক্যান্সার * চট্টগ্রামেও সক্রিয় একাধিক কিশোর গ্যাং * বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের বৈষম্যহীন শিক্ষাব্যবস্থা * ত্রিদেশীয় সিরিজে বাংলাদেশ শ্রীলঙ্কা লড়াই আজ * বিশ্ব এজতেমার দ্বিতীয় পর্ব শুরু * রেলের টিকিটে যাত্রীর নাম লিখার সুপারিশ * আমার সাহস ও কাজ বিএনপির কাছে বড় সমস্যা * বাংলাদেশ এখন উন্নয়নের রোল মডেল * ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের উপ-নির্বাচন স্থগিত * আওয়ামী লীগ: ২০১৮'র বাস্তবতা বুঝতে পারছে কি? * সংসদীয় আসনপ্রতি ১০ মাধ্যমিক স্কুলের উন্নয়নসহ ১৮ হাজার ৪৮৩ কোটি টাকার ১৪ প্রকপ্ল একনেকে অনুমোদন * রাষ্ট্রায়ত্ত ৮ ব্যাংকের নিয়োগ পরীক্ষা বাতিল * জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠায় জননেত্রী শেখ হাসিনা * শেখ হাসিনা সরকারের প্রতি আস্থা কেন? * ২০১৮ সাল ॥ নির্বাচনের বছর * কাদের জন্যে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড? * ২৩ জানুয়ারী থেকে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরু * বিএনপি কেন বর্তমান সরকারের অধীনেই নির্বাচনে আসবে? * জয় দিয়ে বছর শুরু করল টাইগাররা *
     25,2017 Monday at 19:40:04 Share

মাহতাব চৌধুরী চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি

মাহতাব চৌধুরী চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি

চট্টগ্রাম নগর আওয়ামী লীগের দীর্ঘদিনের সভাপতি এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরীর মৃত্যুতে কমিটির প্রথম সহ-সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরীকে ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্ব দিয়েছেন দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনা।

মাহতাব চৌধুরী বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ট সহচর প্রয়াত জহুর আহমদ চৌধুরীর মেজ ছেলে। চট্টগ্রামে মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক জহুর আহমদ চৌধুরীর পরিবারের সঙ্গে বঙ্গবন্ধু পরিবারের সখ্যতা দীর্ঘদিনের।


রোববার দুপুরে চট্টগ্রামে নৌবাহিনীর বার্ষিক কুচকাওয়াজ শেষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চট্টগ্রাম নগর কমিটির দায়িত্ব মাহতাবকে দেওয়ার বিষয়টি জানান।


জহুর আহমদ চৌধুরীর তৃতীয় ছেলে হেলাল উদ্দিন চৌধুরী বলেন, “নগর কমিটি এমনিতেই মেয়াদোত্তীর্ণ। যতদিন নতুন কমিটি বা সম্মেলন না হবে, ততদিন মাহতাব ভাইকেই সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করতে বলেছেন।”


গতবার কমিটি দেওয়ার পরও ‘সুন্দর পরিবেশ’ সৃষ্টি না হওয়ায় আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ‘মনঃক্ষুণ্ন’ জানিয়ে তুফান বলেন, “নেত্রী বলেছেন, ‘মাহতাব ভাইকে বলবে সবাইকে নিয়ে মিলেমিশে যাতে কাজ করে’।”


জহুর আহমদ চৌধুরীর বড় ছেলে সাইফুদ্দিন খালেদ চৌধুরী মুক্তিযুদ্ধে শহীদ হন। দ্বিতীয় ছেলে মাহতাব নগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতির দায়িত্বে রয়েছেন দীর্ঘদিন ধরে। 


তাদের ছোট ভাই সরফুদদ্দিন চৌধুরী রাজু বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “চট্টগ্রামের রাজনীতিতে আমাদের পরিবারের যে অবস্থান সব সময় ছিল, সে কথা বিবেচনা করেই নেত্রী মাহতাব ভাইকে দায়িত্ব দিয়েছেন।”


প্রয়াত সভাপতি এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরীর বড় ছেলে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল  বলেন, সাংগঠনিকভাবে সাধারণত সভাপতির অনুপস্থিতিতে প্রথম সহ-সভাপতিই দায়িত্ব পান।


“নেত্রী নির্দেশ দিয়ে গেছেন। সবার শ্রদ্ধেয় মাহতাব উদ্দিন চৌধুরীই এখন সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন।”


আওয়ামী লীগ ২০১৩ সালের ১৪ নভেম্বর চট্টগ্রাম নগরের জন্য তিন বছর মেয়াদী বর্তমান কমিটি ঘোষণা করে। আগের কমিটির সভাপতি মহিউদ্দিন চৌধুরীকে নেতৃত্বে রেখে সাধারণ সম্পাদক করা হয় আ জ ম নাছির উদ্দিনকে।


৭১ সদস্যের এই কমিটির বিভিন্ন পদে মহিউদ্দিনের অনুসারী হিসেবে পরিচিতদেরই প্রাধান্য দেখা যায়। নগরীর রাজনীতিতে সেসময় ‘মহিউদ্দিনবিরোধী’ হিসেবে পরিচিত ডা. আফসারুল আমীন এবং নুরুল ইসলাম বিএসসি পান সহ-সভাপতির পদ।


গত ১৫ ডিসেম্বর মহিউদ্দিনের মৃত্যুর পর সন্ধ্যায় দাফন শেষে তার চশমা হিলের বাসায় অনানুষ্ঠানিক বৈঠকে বসেছিলেন নগর কমিটির জ্যেষ্ঠ নেতারা।


সেই বৈঠকে উপস্থিত মহিউদ্দিনের অনুসারী একজন জ্যেষ্ঠ নেতা বলেন, সাংগঠনিক নিয়ম অনুসারে সেখানে প্রথম সহ-সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী এবং তার অনুপস্থিতিতে ধারাবাহিকভাবে অন্য সহ-সভাপতিরা দায়িত্ব পালন করবেন বলে প্রস্তাব আসে।


“সাধারণ সম্পাদকের অনুসারীরা শুরুতে রাজি ছিলেন না। পরে সাংগঠনিক বিষয় আলোচনা শেষে আমাদের প্রস্তাব তারা মেনে নেন।”


ওই সভার সিদ্ধান্ত অনুসারেই ১৬ ডিসেম্বর শহীদ মিনারে নগর আওয়ামী লীগ আয়োজিত বিজয় দিবসের আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী।


মহিউদ্দিনের অনুসারী ওই নেতা বলেন, নগর কমিটির মেয়াদ এক বছর আগেই শেষ হয়ে গেছে। অথচ সবগুলো ওয়ার্ড ও থানা কমিটি এখনো হয়নি।


“এ অবস্থায় ওই কমিটি কনটিনিউ করা আর না করা একই কথা। সামনে নির্বাচন, আশা করি নতুন নেতৃত্বকে প্রাধান্য দিয়ে নতুন কমিটি দেওয়া হবে।”


গত ১৮ ডিসেম্বর দুপুরে মহিউদ্দিন চৌধুরীর কুলখানিতে পদদলনে ১০ জন নিহত হওয়ার দিনই বিদেশ সফরে চলে যান নগর কমিটির সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দিন। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে তার সমালোচনা করেন অনেকে। 


মেয়র পদে নির্বাচন, প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের মালিকানা, আউটার স্টেডিয়ামে সুইমিং পুল নির্মাণের উদ্যোগ, বন্দর ব্যবস্থাপনা এবং গৃহকর নিয়ে গত কয়েক বছর ধরে মহিউদ্দিন ও নাছিরের বিরোধ ছিল চরমে।


এ অবস্থায় আগামী নির্বাচন সামনে রেখে নতুন নগর কমিটি করার ওপরই জোর দিচ্ছেন স্থানীয় নেতাকর্মীরা।খবরঃ বিডিনিউজ।

User Comments

  • রাজনীতি