১৭ জুলাই ২০১৮ ১১:৪২:১১
logo
logo banner
HeadLine
মুক্তিযুদ্ধপন্থী জোটকে কেন ভোট দিতে হবে? * 'জাতীয় ডিজিটাল কমার্স নীতিমালা, ২০১৮' এর খসড়া মন্ত্রীসভায় অনুমোদন * জেল ও জরিমানার বিধান রেখে 'মানসিক স্বাস্থ্য আইন'- ২০১৮ এর খসড়া অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা * ১২.৬ বিলিয়ন ডলারের ৪৭ প্রকল্প পিপিপি'তে অনুমোদন * সমুদ্রবন্দরসমূহে ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত * সন্দ্বীপে অগ্নিকান্ডে দোকান পুড়ে ছাই * রাশিয়া বিশ্বকাপ : পুরস্কার জিতলেন যারা * ক্রোয়েশিয়ার স্বপ্ন ভেংগে বিশ্বকাপ জিতে নিল ফ্রান্স * মহা টুর্ণামেন্টের মহা ফাইনাল আজ * টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ বাছাইয়ে চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশের নারীরা * হজ ফ্লাইট শুরু * রাশিয়া বিশ্বকাপে বেলজিয়াম তৃতীয় * 'বিদ্যুৎ উৎপাদনে মহাপরিকল্পনার অংশই রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ' - প্রধাণমন্ত্রী * বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট থেকে নৌযানগুলোতে নিরবচ্ছিন্ন টেলিযোগাযোগ থাকবে * তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ইংল্যান্ড-বেলজিয়াম ম্যাচ আজ * ভারতীয় ভিসায় ই-টোকেন থাকছে না * মাদক ব্যবসায়ী ও অর্থ লগ্নিকারীর মৃত্যুদণ্ডের বিধান রেখে আইন হচ্ছে - সংসদে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী * আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডে বাংলাদেশির প্রথম স্বর্ণপদক জয় * সকল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষার সম্ভাব্য তারিখ নির্ধারণ * শেষ হলো ২০১৮-১৯ অর্থবছরের বাজেট অধিবেশন * কেবল ভিসির বাসভবনে হামলাকারীদের গ্রেফতার করা হচ্ছে, হাইকোর্টের রায়ের কারণে মুক্তিযোদ্ধা কোটা বাতিল সম্ভব নয়: সংসদে প্রধানমন্ত্রী * স্বাধীনতা : নানান বিভাজনে * মুক্তিযোদ্ধাদের ৩০ ভাগ কোটায় হাত দিতে হলে সরকারকে আগে রিভিউ করে আদালতের রায় পক্ষে নিতে হবে - আকম মোজাম্মেল হক * আমরা চাই দেশে গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত থাকুক : সংসদে প্রধানমন্ত্রী * ইংল্যান্ডকে হারিয়ে ফাইনালে ক্রোয়েশিয়া * ইসলাম পবিত্র ধর্ম, শান্তির ধর্ম, এই ধর্মকে প্রশ্নবিদ্ধ করার অধিকার কারও নেই- শেখ হাসিনা * কাকে রেখে কাকে বাঁচাবে বিএনপি? * রিয়াল মাদ্রিদ ছেড়ে জুভেন্টাসে যোগ দিলেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো * ফিফা বিশ্বকাপ ফুটবল ২০১৮ এর ফাইনালে ফ্রান্স * অক্টোবরের শেষ দিকে সংসদ নির্বাচনের তফসিল *
     10,2018 Wednesday at 23:15:18 Share

তাবলিগের দ্বন্দ্বে নাক গলাতে চায় না সরকার: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

তাবলিগের দ্বন্দ্বে নাক গলাতে চায় না সরকার: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

দিল্লির তাবলিগ জামাতের ‍মুরব্বি মাওলানা সা’দ কান্ধলভীকে কেন্দ্র করে ঢাকায় উদ্ভূত পরিস্থিতিতে সরকার নাক গলাতে চায় না বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। বুধবার (১০ জানুয়ারি) তিনি গনমাধ্যমকে বলেন, ‘তারা যে দুই ভাগ হয়েছে, আমরা উভয় অংশকেই মেলানোর অনেক চেষ্টা করেছি। এখন তাতে যদি কাজ না হয়, তাহলে আমাদের কী করার আছে?’


এক্ষেত্রে সরকারের করণীয় কী জানতে চাইলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘তারা একত্র হয়ে যা সিদ্ধান্ত দেবেন, আমরা সেটাই শুনবো। আমরা নাক গলাতে চাচ্ছি না। এখানে আমরা কোনও দলের সঙ্গে একত্র হতে চাই না। তাদের ওপর কিছু চাপিয়ে দিতে চাচ্ছি না।’


সমস্যার সমাধান না হলে সরকারের ভূমিকা প্রসঙ্গে আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেন, ‘তারা একত্র হয়ে আসতে পারলে সমাধান হবে, না হলে না হবে। তবে আমরা নিরাপত্তার বিষয়টি শতভাগ নিশ্চিত করবো। পর্যাপ্ত ব্যবস্থা রাখবো।’


অবশ্য স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, ‘আমি তো আশা করি, আল্লাহ একটা ব্যবস্থা করে দেবেন। তাদের মাথায় শুভবুদ্ধির উদয় হবে। দেখি।’


তাবলিগ জামাতের মূলকেন্দ্র দিল্লির মারকাজ বা নিজামুদ্দিনের মুরব্বি মাওলানা সা’দ কান্ধলভির টঙ্গীর বিশ্ব ইজতেমায় অংশ নিতে বুধবার ঢাকায় আসেন। তাকে ঠেকাতে কওমি মাদ্রাসা ও তাবলিগের একাংশ হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের সামনে বিক্ষোভে নামে। উত্তেজনা দেখা দেয় কাকরাইল মসজিদের সামনেও।


উল্লেখ্য, টঙ্গীতে তাবলিগ জামাতের বিশ্ব ইজতেমায় দিল্লির নিজামুদ্দিন মারকাজের জিম্মাদার মাওলানা মোহাম্মদ সাদ কান্ধলভির অংশগ্রহণ ঠেকাতে লাগাতার অবস্থান কর্মসূচি ঘোষণা করেছেন তার বিরুদ্ধে আন্দোলনকারী সংগঠন বেফাকের (বাংলাদেশ কওমি মাদরাসা শিক্ষা বোর্ড, ঢাকা) নেতারা।


মাওলানা সাদের বর্তমান অবস্থানস্থল রাজধানীর কাকরাইলে তাবলিগের শুরা কার্যালয়ের সামনে ও টঙ্গীর বিশ্ব ইজতেমা মাঠে বুধবার (১০ জানুয়ারি) বিকেল থেকেই এ অবস্থানের ঘোষণা দেন বেফাকের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মাওলানা আবদুল কুদ্দুস এবং সহকারী মহাসচিব মুফতি মাহফুজুল হক।


মাওলানা সাদের আগমন ঠেকাতে সকাল থেকে ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের সামনের সড়কের চত্বরে বিক্ষোভ করছিলেন বেফাক ও হেফাজতের নেতাকর্মীরা। মাওলানা সাদ থাই এয়ারওয়েজের ফ্লাইটযোগে শাহজালাল বিমানবন্দরে পৌঁছানোর পর কাকরাইলে শুরা কার্যালয়ে চলে গেলে বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে সেখানে বিক্ষোভের সমাপ্তি টেনে নতুন এ কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়।


বেফাকের নেতারা জানান, বিমানবন্দর চত্বরের বিক্ষোভে অংশগ্রহণকারীরা দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে কাকরাইল ও ইজতেমা মাঠে চলে যাবেন। মাওলানা সাদের ইজতেমায় অংশগ্রহণের বিষয়টির সুরাহা না হওয়া পর্যন্ত এখন থেকে লাগাতার এ বিক্ষোভ চলবে।


বিমানবন্দর চত্বরের বিক্ষোভে সমাপ্তি টানার পর ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের বনানী থেকে শেওড়া, কুড়িল, খিলক্ষেত, উত্তরা ও আব্দুল্লাহপুর পর্যন্ত সড়কে আটকে পড়া যানবাহন চলতে শুরু করে। তবে সকাল থেকে বিক্ষোভ শুরু হওয়ার কারণে যানবাহনের যে চাপ তৈরি হয়, তা কাটতে বেশ সময় লাগবে বলে মনে করছেন ট্রাফিক পুলিশের কর্মকর্তারা।


তাবলিগ জামাতের অন্যতম শীর্ষ মুরুব্বি, দিল্লি নিজামুদ্দিনের জিম্মাদার মাওলানা সাদের কিছু বক্তব্য ও একক নেতৃত্বের প্রশ্নে বেশ কয়েক বছর যাবৎ আলেম-উলামা ও তাবলিগের মুরুব্বিদের মাঝে অসন্তোষ বিরাজ করছে।


এর প্রেক্ষিতে ভারতের দারুল উলুম দেওবন্দ মাওলানা সাদের বিপক্ষে অবস্থান নেয়, আর নিজামুদ্দিন ছেড়ে চলে যান মাওলানা ইবরাহিম দেওলাসহ বেশ কয়েকজন মুরুব্বি। বিশ্বব্যাপী তাবলিগের বিভিন্ন মারকাজগুলোও দ্বিধা-বিভক্ত হয়ে পড়ে।


এই দ্বিধা-বিভক্তির মধ্যে সম্প্রতি কানাডা, মালয়েশিয়া ও ইন্দোনেশিয়া তাবলিগের শুরা থেকে বাংলাদেশ শুরা ও সরকারকে চিঠি দিয়ে মাওলানা সাদকেই ইজতেমার নেতৃত্বে রাখার দাবি জানায়। কিন্তু বিরোধীরা কোনোভাবেই মাওলানা সাদকে মেনে না নেওয়ার কথা জানিয়ে দেয়।

User Comments

  • জাতীয়