২২ আগস্ট ২০১৮ ২:৭:৪৮
logo
logo banner
HeadLine
সন্দ্বীপবাসীকে ইদুল আযহার শুভেচ্ছা জানালেন মেয়র * খালেদা-তারেক ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় সরাসরি জড়িত: প্রধানমন্ত্রী * কাল পবিত্র ইদ উল আযহা * কুরবানি কি ? কুরবানির গুরত্বপূর্ণ মাসয়ালা মাসায়েল * ২১ আগস্ট, রক্তাত্ত ২১ আগস্ট * তাকবীরে তাশরীক কি এবং কখন পড়তে হয় * বিমান বহরে যুক্ত হল বোয়িং ৭৮৭ 'আকাশবীণা' * কুরবানির জন্য সুস্থ ও ভালো পশু চেনার উপায় * আজ হজ, লাব্বাইক ধ্বনিতে মুখরিত হবে আরাফাত ময়দান * সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, শেখ রেহানা, সায়মা ওয়াজেদের কোনো আইডি নেই * চক্রান্ত চলছে, গোপন বৈঠক হচ্ছে, আমরাও প্রস্তুত আছি - কাদের * হজের আনুষ্ঠানিকতা শুরু : মিনায় যাচ্ছেন হাজিরা * খাগড়াছড়িতে ইউপিডিএফের সমাবেশ প্রাক্কালে সন্ত্রাসীদের গুলি, নিহত ৬ * কফি আনান আর নেই * মোটা তাজা কোরবানির পশু ও স্বাস্থ্য ঝুঁকি * গুজবই ভরসা , সরকার হটাতে বিরোধীদের অপচেষ্টা * নিরাপদ সড়ক নিশ্চিত করতে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের বেশ কিছু নির্দেশনা * ডাক্তাররা রোগীকে মেরে ফেলতে চান না, তারা অনেক ঝুঁকি নিয়ে কাজ করেন:প্রধানমন্ত্রী * জিলহজ মাসের আমলসমূহ * ডিসেম্বারের শেষ সপ্তাহে সংসদ নির্বাচন, তফসিল নবেম্বরের প্রথমে * সৌদি আরবে সড়ক দূর্ঘটনায় সন্দ্বীপের এক পিতা ৩ কন্যাসহ নিহত, মাতা ও ১ পুত্র আহত * বঙ্গবন্ধু সপরিবারে নিহতের সঙ্গে জিয়া জড়িত ছিল : শেখ হাসিনা * বাংলাদেশে আর কোনদিন খুনীদের রাজত্ব আসবে না : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা * হেলিকপ্টারে পদ্মা সেতুর অগ্রগতি দেখছেন প্রধানমন্ত্রী * ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী অটল বিহারি বাজপেয়ির মৃত্যু * দেশীয় গরুতে কোরবানি * বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ অবিচ্ছেদ্য * সাগরে মৌসুমী নিম্নচাপ, ৩ নং সতর্ক সংকেত * সৌদি আরবে আরও ৫ বাংলাদেশি হজযাত্রীর মৃত্যু * বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা *
     26,2018 Saturday at 20:37:11 Share

১ লাখ ওয়াইফাই হটস্পটের ২৫ ভাগ তৈরি, আরও এক হাজারের প্রস্তাব উঠছে মন্ত্রিসভায়

১ লাখ ওয়াইফাই হটস্পটের ২৫ ভাগ তৈরি, আরও এক হাজারের প্রস্তাব উঠছে মন্ত্রিসভায়

সারাদেশে সরকারের ১ লাখ ওয়াইফাই হটস্পট নির্মাণ কাজের এক-চতুর্থাংশ শেষ হয়েছে। শিগগিরই আরও ১ হাজার হটস্পট তৈরির প্রস্তাব মন্ত্রিসভায় উঠবে বলে জানা গেছে। এর পাশাপাশি চলছে নীতিমালা তৈরির কাজও।
অন্যদিকে দেশের দুর্গম এলাকায় ফোর-জি সেবা দিতে ব্যয়বহুল টাওয়ার স্থাপন বা নেটওয়ার্ক তৈরি না করে হটস্পটের মাধ্যমে বিপুলসংখ্যক মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীদের এই সেবা দেওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।


মূলত হটস্পট নির্মাণের নীতিমালা না থাকা এবং ইন্টারনেট ব্যবহারের কোনও নির্দেশনা না থাকায় বিষয়টি দিন দিন ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠছিল বলে সংশ্লিষ্ট মহল থেকে একাধিক বার বলা হয়। এসব কারণে ১ লাখ হটস্পট তৈরির উদ্যোগে ধীরগতি দেখা দেয়। এই ধীরগতি দূর করতে হটস্পট নির্মাণের নীতিমালা তৈরি হচ্ছে। একইসঙ্গে তৈরি হচ্ছে ইন্টারনেট ব্যবহারের নিয়ম-কানুনও।


জানতে চাইলে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, ‘১ লাখ হটস্পটের মধ্যে ২৫ ভাগের নির্মাণ শেষ হয়েছে। অবশিষ্টগুলোও তৈরি করা হবে। তবে কিছু বিষয় তার আগে শেষ করতে হবে।’ তিনি জানান, আরও ১ হাজার হটস্পট তৈরির প্রস্তাব অনুমোদনের জন্য শিগগিরই মন্ত্রিসভায় উঠবে। এই ১ হাজার হটস্পট তৈরির বিষয়ে এবার আরও কৌশলী হওয়া হবে বলে তিনি জানান। প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘যেকোনও জায়গায় নয়, আমরা বেছে বেছে যেখানে প্রয়োজন, তরুণ প্রজন্মের চাহিদা আছে, এমন জায়গায় বেশি সক্ষমতার ডিভাইস বসিয়ে আরও বেশি জায়গা কাভারেজের আওতায় নিয়ে আসার ওপর জোর দেবো।’
তিনি জানান, এরই মধ্যে দেশের ১৮ হাজার সরকারি অফিস, সচিবালয়, কয়েকটি কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় এবং ২ হাজার ৯০০টি শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাবে ওয়াইফাই স্পট তৈরি করা হয়েছে। আগামীতে ৮ হাজার ৫০০ ডাকঘর, ভূমি অফিস, কমিউনিটি হেলথ ক্লিনিকসহ আরও অনেক প্রতিষ্ঠান হটস্পটের আওতায় আনা হবে।
জুনাইদ আহমেদ পলক আরও জানান, ফোর-জি যেখানে পৌঁছাতে পারছে না সেখানে ১-২ কিলোমিটার বা তারও বেশি এলাকা কাভারেজ দিতে সক্ষম এমন ডিভাইস বসিয়ে ফোর-জি সেবা পৌঁছানোরও উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।
আইসিটি বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, ফ্রি ওয়াইফাই ও ইন্টারনেটের জন্য বছরে বিল হতো ৬০ কোটি টাকা। গত বছর পর্যন্ত এই টাকা আইসিটি বিভাগ পরিশোধ করতো। কিন্তু আইসিটি বিভাগ মনে করে, প্রতিটি সরকারি অফিসকে যেমন বিদ্যুৎ বিল, টেলিফোন বিল পরিশোধ করতে হয়, তেমনি ইন্টারনেট বিলও পরিশোধ করা উচিত। কারণ, ইন্টারনেটও এখন জরুরি হয়ে পড়েছে। ফলে আগামীতে যেসব হটস্পট তৈরি হবে এবং সেখানে যে পরিমান বিল হবে তা সংশ্লিষ্ট পক্ষ থেকে পরিশোধের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
জানা গেছে, নিরাপদ ইন্টারনেট ব্যবহারের জন্য সাইবার সিকিউরিটি গাইডলাইন তৈরি হচ্ছে। ইন্টারনেট ব্যবহার করতে হলে এই গাইডলাইন মানতে হবে। হটস্পটের ইন্টারনেট ব্যবহারে যাতে কোনও অনিয়ম না হয়, কেউ যেন কারও ক্ষতি করতে না পারে, কোনও অপকর্ম হতে না পারে, সেজন্য এ গাইডলাইন। গাইডলাইন হলে হটস্পটসহ সব ধরনের ইন্টারনেট সেবা নিরাপদ থাকবে বলে সংশ্লিষ্টরা আশা করছেন।


সংশ্লিষ্টরা বলছেন, হটস্পটের ফ্রি ওয়াইফাই ব্যবহার করে রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে কোনও ধরনের অপকর্ম করে কেউ যাতে পার পেয়ে যেতে না পারে সেজন্য একটি নীতিমালার অভাব অনুভূত হচ্ছিল। সেই অভাব পূরণে নীতিমালা তৈরি হচ্ছে। যুক্তরাষ্ট্র, ভারত, ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত (ইইউ) দেশ, ইন্দোনেশিয়া ও সিঙ্গাপুরের ফ্রি ওয়াইফাই হটস্পট নির্মাণের নীতিমালাগুলো দেখে এবং যাচাই-বাছাই করে একটি স্বতন্ত্র নীতিমালা তৈরি করা হবে। সেই নীতিমালা মেনে দেশে ওয়াইফাই হটস্পট তৈরি করা হবে।
জানা গেছে, হটস্পটে ‘ইয়ুথ কর্নার’ তৈরি করা হবে। এ কর্নারকে আইটি কর্নার ও ইনফরমেশন সেন্টার হিসেবে গড়ে তোলার পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের। সেখানে স্থাপন করা হবে ইন্টারনেট কিয়স্ক ও একটি বড় এলইডি টিভি। ওয়াইফাই জোন হওয়ায় কিয়স্কে থাকবে উচ্চগতির ইন্টারনেট। সেখানে ওয়াইফাইয়ের গতি কত হবে, কতটুকু এলাকা এর আওতাভুক্ত হবে, কোন ধরনের জায়গায় বসানো হবে, কী ধরনের নিরাপত্তা ব্যবস্থা রাখা হবে ইত্যাদি বিবেচনায় নিয়ে পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে।
বেসরকারিভাবে অনেক প্রতিষ্ঠানও দেশে ওয়াইফাই হটস্পট নির্মাণ করছে। এর মধ্যে মোবাইল ফোন অপারেটর, মোবাইল ফোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান, ইন্টারনেট সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানও রয়েছে। দেশের কয়েকটি দূরপাল্লার রুটের বাসে, ঢাকা শহরের কিছু বাসে ওয়াইফাই সেবা দেওয়া হচ্ছে। জানা গেছ, বেসরকারি উদ্যোগে নির্মিত হটস্পটগুলো ১ লাখ ওয়াইফাই হটস্পটের মধ্যে পড়বে না।


বর্তমান সরকার দ্বিতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় আসার পরে আইসিটি বিভাগ সারাদেশে ১ লাখ ফ্রি ওয়াইফাই হটস্পট তৈরির ঘোষণা দেয়। ওই ঘোষণায় বলা হয়, ইউনিয়ন পর্যায়ের হাট-বাজার, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, লঞ্চঘাট, এয়ারপোর্ট, বাস টার্মিনালসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ও লোকসমাগমের স্থানে এসব হটস্পট তৈরি করা হবে। সরকারি যেসব অফিসে ইন্টারনেট সংযোগ আছে সেখানে রাউটার বসিয়ে ওই অফিসে আসা লোকজনকেও ইন্টারনেট সেবা দেওয়া যাবে। বাংলাট্রিবিউন।


 

User Comments

  • বিজ্ঞান ও তথ্য প্রযুক্তি