২১ আগস্ট ২০১৮ ১৪:৫:৫৫
logo
logo banner
HeadLine
কাল পবিত্র ইদ উল আযহা * কুরবানি কি ? কুরবানির গুরত্বপূর্ণ মাসয়ালা মাসায়েল * ২১ আগস্ট, রক্তাত্ত ২১ আগস্ট * তাকবীরে তাশরীক কি এবং কখন পড়তে হয় * বিমান বহরে যুক্ত হল বোয়িং ৭৮৭ 'আকাশবীণা' * কুরবানির জন্য সুস্থ ও ভালো পশু চেনার উপায় * আজ হজ, লাব্বাইক ধ্বনিতে মুখরিত হবে আরাফাত ময়দান * সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, শেখ রেহানা, সায়মা ওয়াজেদের কোনো আইডি নেই * চক্রান্ত চলছে, গোপন বৈঠক হচ্ছে, আমরাও প্রস্তুত আছি - কাদের * হজের আনুষ্ঠানিকতা শুরু : মিনায় যাচ্ছেন হাজিরা * খাগড়াছড়িতে ইউপিডিএফের সমাবেশ প্রাক্কালে সন্ত্রাসীদের গুলি, নিহত ৬ * কফি আনান আর নেই * মোটা তাজা কোরবানির পশু ও স্বাস্থ্য ঝুঁকি * গুজবই ভরসা , সরকার হটাতে বিরোধীদের অপচেষ্টা * নিরাপদ সড়ক নিশ্চিত করতে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের বেশ কিছু নির্দেশনা * ডাক্তাররা রোগীকে মেরে ফেলতে চান না, তারা অনেক ঝুঁকি নিয়ে কাজ করেন:প্রধানমন্ত্রী * জিলহজ মাসের আমলসমূহ * ডিসেম্বারের শেষ সপ্তাহে সংসদ নির্বাচন, তফসিল নবেম্বরের প্রথমে * সৌদি আরবে সড়ক দূর্ঘটনায় সন্দ্বীপের এক পিতা ৩ কন্যাসহ নিহত, মাতা ও ১ পুত্র আহত * বঙ্গবন্ধু সপরিবারে নিহতের সঙ্গে জিয়া জড়িত ছিল : শেখ হাসিনা * বাংলাদেশে আর কোনদিন খুনীদের রাজত্ব আসবে না : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা * হেলিকপ্টারে পদ্মা সেতুর অগ্রগতি দেখছেন প্রধানমন্ত্রী * ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী অটল বিহারি বাজপেয়ির মৃত্যু * দেশীয় গরুতে কোরবানি * বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ অবিচ্ছেদ্য * সাগরে মৌসুমী নিম্নচাপ, ৩ নং সতর্ক সংকেত * সৌদি আরবে আরও ৫ বাংলাদেশি হজযাত্রীর মৃত্যু * বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা * জিয়াই ছিলেন বঙ্গবন্ধু হত্যার মূল হোতা * মৃত্যুর মুখেও পিছু হটিনি - প্রধানমন্ত্রী *
     02,2018 Thursday at 06:47:36 Share

চতুর্থ দিনে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ , বাসমালিক গ্রেফতার, শিক্ষার্থীদের সব দাবি মেনে নিয়েছে সরকার

চতুর্থ দিনে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ  , বাসমালিক গ্রেফতার, শিক্ষার্থীদের সব দাবি মেনে নিয়েছে সরকার

বাসচাপায় শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের দুই শিক্ষার্থীর মৃত্যুর ঘটনায় ঘাতক বাসচালকদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে চতুর্থ দিনেও শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভে অচল হয়ে পড়েছিল ঢাকা। এদিকে বিক্ষোভকারীদের সব দাবি সরকার মেনে নিয়েছে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। তিনি ঘাতকদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির আশ্বাস দিয়ে বিক্ষোভকারীদের ক্লাসে ফিরে যাওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। বিক্ষোভকারীদের আড়ালে কেউ যাতে অরাজক পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে না পারে এবং শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে আজ বৃহস্পতিবার সারা দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে সরকার। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর ঘোষণার পর পরই জাবালে নূরের সেই ঘাতক বাসটির মালিক শাহাদাৎ হোসেনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। আগে গ্রেফতার হওয়া বাসটির চালক মাসুম বিল্লাহকে সাত দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ। সন্ধ্যায় নৌমন্ত্রী শাজাহান খান দিয়া খানম মীমের বাসায় গিয়ে তার পবিবারকে সান্ত¦না দেয়ার পাশাপাশি সব শিক্ষার্থীর কাছে ক্ষমা চেয়েছেন।


এদিকে বুধবারও ঢাকা ছাড়া দেশের বিভিন্ন জায়গা বিক্ষোভ হয়েছে। শিক্ষার্থীদের শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভে অচল ছিল ঢাকা ।  দু-চারটে ব্যক্তিগত গাড়ি ছাড়া ঢাকার রাস্তায় কোন গণপরিবহন ছিল না। ফলে মানুষের দুর্ভোগ ছিল চরমে। পুরো ঢাকায় বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ার কারণ হিসেবে বিক্ষোভকারীদের ভাষ্য, অতীতে এ ধরনের অনেক ঘটনা ঘটেছে। কিন্তু ঘাতকদের বিচার হয়নি। আর যাতে এমন না হয়, এজন্যই এবার তারা পুরো ঢাকায় বিক্ষোভ করছে।


বিক্ষোভকালে হাজার হাজার শিক্ষার্থী পুরো ঢাকায় অবস্থান নিলেও কোথাও কোন ভাংচুর, অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটেনি। উপরন্তু বিক্ষোভকারীরা এ্যাম্বুলেন্স, ফায়ার সার্ভিস, খাবারের গাড়ি, আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় নিয়োজিত যানবাহন নিজ উদ্যোগে গন্তব্যে পৌঁছে দিয়েছে। পুরো ঢাকা অচল থাকলে খোলা ছিল সব অফিস আদালত, বিপণি বিতান, দোকানপাটসহ সব ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। কোন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে একটি ঢিল ছোড়ারও ঘটনা ঘটেনি। সাধারণ মানুষের সঙ্গেও কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। বিআরটিএ রাস্তায় ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে অভিযান চালিয়েছে। এছাড়া বুধবার বিআরটিএ কর্তৃপক্ষ ঘাতক জাবালে নূর পরিবহনের রুট পারমিট বাতিল করেছে।


উল্লেখ্য গত ২৯ জুলাই রবিবার দুপুরে রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কের কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালের সামনে এমইএস বাসস্ট্যান্ডে যাত্রীবাহী জাবালে নূর পরিবহনের একটি বাসের চাপায় শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের একাদশ শ্রেণীর ছাত্রী দিয়া খানম মীম ও বিজ্ঞান বিভাগের দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্র আব্দুল করিম রাজিব নিহত হয়। আহত হয় অন্তত ১৫ শিক্ষার্থী।


ঘটনার পর থেকেই শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ করতে থাকে। তারই রেশ ধরে বুধবার সকাল থেকেই আবারও ঢাকায় বিক্ষোভ শুরু হয়। বুধবার সকাল দশটা থেকে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় সেসব এলাকার কলেজের শিক্ষার্থী রাস্তায় নেমে আসে। তারা রাস্তায় অবস্থান নেয়। সরেজমিনে ঢাকার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে মিলেছে নানা চিত্র।


 শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে রাজধানী অচল হয়ে যাওয়ার প্রেক্ষাপটে বুধবার সচিবালয়ে পরিবহন মালিক ও শ্রমিক প্রতিনিধিদের সঙ্গে এক বৈঠকের পর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, সরকার শিক্ষার্থীদের নয় দফা দাবি মেনে নিয়েছে। কারণ তাদের দাবি যৌক্তিক। তিনি বলেন, দেশব্যাপী স্টার্টিং পয়েন্টে (বাস টার্মিনাল) গাড়ির ফিটনেস, রুট পারমিট, ড্রাইভারের লাইসেন্স পরীক্ষা করা হবে। লাইসেন্সবিহীন কোন ড্রাইভার রাস্তায় গাড়ি চালাতে পারবে না। যারা অন্যায় করেছে, যারা ঘাতক, আইন অনুযায়ী সর্বোচ্চ শাস্তি যাতে তারা পায়, সেই ব্যবস্থা আমরা করছি। পরিবহন মালিক ও শ্রমিক প্রতিনিধিদের সঙ্গে সরকারের এই বৈঠকে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন নৌমন্ত্রী শাজাহান খান এবং পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী মসিউর রহমান রাঙ্গা।


স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেছেন, যে কোমলমতি শিক্ষার্থীরা রাজপথে বিক্ষোভ করছে, তারাও ভাঙচুরে পক্ষে নয়। কিন্তু গত চার দিনে মোট ৩০৯টি গাড়ি ভাঙচুরের শিকার হয়েছে, আটটি গাড়ি পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে। আর এজন্য একটি স্বার্থান্বেষী মহলকে দায়ী করেন আওয়ামী লীগ নেতা আসাদুজ্জামান খান কামাল।


দুই শিক্ষার্থীকে চাপা দিয়ে হত্যা করা সেই আলোচিত জাবালে নূর নামের ঢাকা মেট্রো-ব-১১-৯২৯৭ নম্বরের বাসটির মালিক মোঃ শাহাদাৎ হোসেনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। বুধবার তাকে গ্রেফতার করা হয় বলে জানিয়েছেন র‌্যাবের লিগ্যাল এ্যান্ড মিডিয়া বিভাগের জ্যেষ্ঠ সহকারী পরিচালক এএসপি মিজানুর রহমান ভূঁইয়া। অন্যদিকে ঘাতক বাসটির চালক মাসুম বিল্লাহকে সাত দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে আদালত। দুর্ঘটনা নিহত মীমের পিতা জাহাঙ্গীর আলম বাদী হয়ে ক্যান্টনমেন্ট থানায় এ সংক্রান্ত একটি মামলা দায়ের করেন।


নিহত দিয়ার বাসায় নৌমন্ত্রী, হাসির জন্য ক্ষমা চাইলেন ॥ সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত দুই শিক্ষার্থীর একজন দিয়া খানম মীমের বাসায় গিয়েছিলেন নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান। বুধবার সন্ধ্যা ছয়টার দিকে নৌমন্ত্রী মহাখালীর দক্ষিণপাড়ায় দিয়াদের বাসায় যান। প্রায় ২০ মিনিট অবস্থান করে দিয়ার বাবা জাহাঙ্গীর ফকির এবং স্বজনদের সান্ত¡না দেন। সেখানে দিয়ার বন্ধু-বান্ধবীসহ অন্য শিক্ষার্থীরাও উপস্থিত ছিল। দিয়ার বাবা জাহাঙ্গীর ফকির জানান, আমি মন্ত্রীকে রাস্তায় যেসব অদক্ষ ড্রাইভার আছে তাদের লাইসেন্স বাতিল করতে বলেছি। ফিটনেসবিহীন বাসগুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেন। মন্ত্রী এসব করবেন বলে আশ্বাস দেন।


তিনি আরও জানান, ঘটনার পরদিন তার হাসি নিয়েও ব্যাখ্যা দেন মন্ত্রী। মন্ত্রী বলেছেন, অন্য একটা বিষয় নিয়ে কথা হচ্ছিল। সে সময় মন্ত্রী হেসেছিলেন। দুর্ঘটনার বিষয়ে উত্তর দেয়ার সময়ও সেই হাসিটাই ছিল। ঘটনার জন্য মন্ত্রী আমি ছাড়াও সবার কাছে চেয়েছেন।


শিক্ষার্থীসহ সংশ্লিষ্টদের ধৈর্য ধরার আহ্বান শিক্ষামন্ত্রীর ॥ শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় দুই শিক্ষার্থীর নিহত হওয়ার ঘটনায় গভীর শোক ও মর্মবেদনা প্রকাশ করেছেন। এ ধরনের অনাকাক্সিক্ষত দুর্ঘটনায় সহপাঠীর মৃত্যুতে কোমলমতি শিক্ষার্থীসহ আমরা শিক্ষা পরিবারের সকলে শোকার্ত।


বুধবার মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে উর্ধতন কর্মকর্তাবৃন্দ ও সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে এক তাৎক্ষণিক সভায় তিনি শিক্ষা পরিবারের পক্ষ থেকে সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি আন্তরিক সমবেদনা ও সহমর্মিতা জ্ঞাপন করে এসব কথা বলেন। তিনি আরও বলেন, উক্ত দুর্ঘটনার সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করা এবং সড়ক পরিবহনকে আরও সুশৃঙ্খল ও নিরাপদ করার লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী ইতোমধ্যেই কঠোর নির্দেশনা প্রদান করেছেন। সে অনুযায়ী স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় যথাযথ উদ্যোগ গ্রহণ করেছে এবং দোষীদের গ্রেফতার করেছে। সংশ্লিষ্ট দোষীদের সর্বোচ্চ শাস্তির বিষয়ে আইনানুগ কার্যক্রম গ্রহণ অব্যাহত আছে।


সভায় মন্ত্রী শোকার্ত কোমলমতি শিক্ষার্থীদের শোক সংবরণ করে শান্ত থাকা ও ধৈর্য ধারণ করার জন্য আহ্বান জানান। তিনি সংশ্লিষ্ট সকল শিক্ষক, অভিভাবক ও অন্যদের শিক্ষার্থীর পাশে থেকে শিক্ষা কার্যক্রমে সহয়োগিতা করার জন্য ভূমিকা রাখার অনুরোধ জানান।


সভায় শিক্ষাসচিব মোঃ সোহরাব হোসাইন, মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিবগণ এবং মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক মোঃ মাহবুবুর রহমানসহ সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত ছিলেন।


বুধবার সচিবালয় থেকে বাংলামোটরে যাওয়ার সময় বিক্ষোভকারীরা রাস্তায় বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদের সামনে অবস্থান নেয়। পরে মন্ত্রী নেমে বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে কথা বলেন। মন্ত্রী দুর্ঘটনায় দুই শিক্ষার্থীর মৃত্যুর ঘটনায় চরম কষ্ট পেয়েছেন বলে জানান।


 সড়ক পরিবহন আইনে সম্মতি সম্পন্ন করেছে আইন মন্ত্রণালয়। আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বুধবার ভেটিং সম্পর্কিত নথিতে অনুমোদন দেন। নথিটি এরপর সড়ক পরিবহন মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হচ্ছে। সচিবালয়ে নিজ কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে আইনমন্ত্রী বলেন, সড়ক দুর্ঘটনায় যে শাস্তি হওয়া উচিত, তার সর্বোচ্চটাই থাকছে সড়ক পরিবহন আইনে। জনকন্ঠ।

User Comments

  • জাতীয়