২০ এপ্রিল ২০১৯ ০:৫২:১৩
logo
logo banner
HeadLine
শিরক এবং এর থেকে বেঁচে থাকার উপায় * দুর্যোগ-দুর্ঘটনায় করণীয়গুলো ভালোভাবে প্রচারের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর * সন্দ্বীপ পৌরসভায় ১২৫ সেট সেনেটারী লেট্রিন বিতরণ * সেবামূলক প্রতিষ্ঠান হিসাবে সেবাই আমাদের ব্রত- জাফর উল্যা টিটু * আজ ১৭ এপ্রিল : বাংলাদেশের প্রথম সরকারের শপথ গ্রহণ দিবস * ২১ এপ্রিলেই শবে বরাত * বিশ্বকাপে বাংলাদেশ দল ঘোষণা * চট্টগ্রামের শিক্ষার্থীদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর ১০ বাস উপহার * নুসরাতকে পোড়ানোতে সরাসরি জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে নুর উদ্দিন ও শামীম * উন্নত-সমৃদ্ধ দেশ গড়তে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর * আজ পহেলা বৈশাখ, শুভ নববর্ষ ১৪২৬ * নুসরাত হত্যা : পরিকল্পনায় সিরাজউদ্দৌলা, জড়িত ১৩,আগুন দেয় ৪ জন * চারদিনের সফরে ঢাকায় ভুটানের প্রধানমন্ত্রী, লালগালিচা সংবর্ধনা * ১২ এপ্রিল, ১৯৭১ : মুজিবনগর সরকারের মন্ত্রিসভার নাম ঘোষণা * মুজিববর্ষ ও বাঙালীর রাষ্ট্র দিবস * প্রথমবারের মতো কৃষ্ণগহ্বরের ছবি দেখলো মানব জাতি * তিন লাখ টাকা মুক্তিপনের জন্য ডেমরার মাদ্রাসাছাত্র শিশু মিনরকে হত্যা করে মাদ্রাসার অধ্যক্ষ * গায়ে কেরোসিন দিয়ে আগুন ধরিয়ে দেয়া সোনাগাজীর মাদ্রাসাছাত্রী সেই নুসরাতকে বাঁচানো গেল না * বঙ্গবন্ধু ও সত্যবাদী আদর্শ * সবক্ষেত্রে এগিয়ে যাওয়ার একমাত্র পথ গবেষণা - প্রধানমন্ত্রী * চট্টগ্রামে চালু হচ্ছে বিশ্বমানের হাসপাতাল * অগ্নিনিরাপত্তা নিয়ে শিগগিরই বৈঠক ডাকা হবে * ২২ বছর পর সেন্টমার্টিনে আবারও বিজিবি মোতায়েন * ২১ এপ্রিল পবিত্র শব-ই-বরাত * বিজিএমইএ নির্বাচনে পুরো প্যানেলসহ বিজয়ী রুবানা হক * খালেদার প্যারোলে মুক্তির আবেদন করলে ভেবে দেখা হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী * সুস্থ হয়ে হাসপাতাল ছাড়লেন ওবায়দুল কাদের * সংঘাত নয় আলোচনার মাধ্যমে রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে ফেরানোর প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে - প্রধানমন্ত্রী * সীতাকুন্ড, মিরসরাই ও সোনাগাজী অর্থনৈতিক অঞ্চল নিয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব শিল্পনগরের ভিত্তি স্থাপন * জহিরুল আলম দোভাষ সিডিএ'র নতুন চেয়ারম্যান *
     09,2018 Thursday at 08:43:49 Share

বিষের ছোঁয়ায় একটি সামাজিক আন্দোলনের মৃত্যু

বিষের ছোঁয়ায় একটি সামাজিক আন্দোলনের মৃত্যু

স্বদেশ রায় ::
ফুলের মতো ছিল
মনে হয়েছিল রাস্তায় হাজার হাজার ফুল ফুটেছে। ফুলের যেমন নিজের কোন স্বার্থ নেই কেবল অন্যের জন্য গন্ধ বিলায়- এরাও ছিল ঠিক তেমনি। স্কুল কলেজের ছেলেমেয়েরা রাস্তায় নেমে এসেছিল বেদনার্ত মুখ নিয়ে, চোখে কান্নার টলমল জল। না, নিজের জন্য নয় বেদনা, জল ছিল তাদের সহপাঠীর জন্য। তাদের সহপাঠী রাজপথে মারা গেছে। না, কোন আন্দোলনে, কোন দাবিতে এসে তারা মারা যায়নি। তারা মারা গেছে একটি সুখী সমৃদ্ধ হওয়ার পথে এগিয়ে যাওয়া সুন্দর দেশে। যারা মারা গেছে তাদের পিতা-মাতা কোন বড় চাকুরে নয়, তারপরে তারা ভাল কলেজে পড়ছে। কারণ, রাষ্ট্র তাদের পিতা-মাতাকে সেই আয় করার পরিবেশ দিয়েছে। তাদেরও করে দিয়েছে পড়ার সুযোগ। তাই খুশি মনে কলেজে যাওয়ার পথেই হয় তাদের খুশির অবসান। দুটি বাসের উন্মাদ প্রতিযোগিতায় তারা মারা যায়। এই কষ্ট তাদের সহপাঠীদের সহ্যের নয়। সহপাঠীরা তীব্র বেদনা নিয়ে রাজপথে নেমে পড়ে। ২৯ জুলাই তারা যখন রাজপথে নামে তখন তারা কয়েকটি রাস্তায় ছিল। ৩০ ৩১ জুলাই তারা রাজধানীর নানান স্থানে। কয়েকটি স্থানে ঘুরে ঘুরে তাদের মুখ দেখেছি। তাদের মুখের ভাষা বোঝার চেষ্টা করেছি। না, বাস চাপায় মারা গেলে তাদের কোন ক্রোধ নেই আমার ছোট যানবাহনটির ওপর। বার বার চেয়ে চেয়ে দেখেছি সন্তানদের মুখগুলো। ভাল লেগেছে এই ভেবে, এই লোভ যুদ্ধ উন্মাদনা পশ্চাৎপদ চিন্তার পৃথিবীতে তাদের মুখে ভালবাসার বেদনা। তাদের এই বেদনার ভেতর একটা সুন্দর বাংলাদেশের ভবিষ্যত দেখা যায়


কেন তুমি পারবে না


মনে মনে ভাবি কী হতে পারে তাদের মুখের ভাষা। আমরা যখন রাজপথে ছিলাম, তখন তো আমাদের মুখের ভাষা, শরীরের ভাষা ছিল একটাইÑ ‘সামরিক সরকারের পতন চাই না, এখানে সে ভাষা নয়। নতুন ভাষা। গণতান্ত্রিক, সুখী সমৃদ্ধ দেশের সন্তানদের ভাষা। বড় নতুন লাগল ভাষা দেখে। আন্দোলনে ভাষা এর আগে কখনও ভূখ- দেখিনি। যেমন করে মায়ের কাছে সন্তান দাবি জানায় তেমনি করেই যেন ওই বেদনার্ত মুখগুলো দাবি জানাচ্ছে, তুমি নিজের টাকায় পদ্মা সেতু করতে পার, তুমি ফ্লাইওভার করতে পার একের পর এক- তুমি এলিভেটেড এক্সপ্রেসের কাজ শুরু করেছ, মেট্রোরেলের কাজ শুরু করেছ, তুমি আমার বাবা-মায়ের আয় বাড়িয়ে দিয়েছ, আমি বিদেশী চকলেট খাচ্ছি- অথচ তুমি আমাকে রাস্তায় নিরাপত্তা দিতে পার না? আমি রাস্তায় নিরাপত্তা চাই, আমি নিরাপদ সড়ক চাই। নিরাপদ সড়ক যে কতটা দরকার তা প্রতিটি পিতা-মাতার বুক বুঝতে পারে। যতক্ষণ সন্তান রাস্তায় থাকে বা দূরে কোথাও যায় ততক্ষণ কি যেন একটা অজানা আশঙ্কায় বুক দপ দপ করে। এক কঠিন বেদনা বুকের। এখানে সবাই সমান, এখানে বিশ্বাসী, অবিশ্বাসী সকলে একই রকম কাতর থাকে


ওরা বনপুষ্প


এই যে রাজপথে মৃত্যু এর জন্য সব দায় দরিদ্র ড্রাইভারদের ওপর চাপানো যায় না। কারণ, দেশ সমৃদ্ধির পথে- তবে এখনও তো শতভাগ

User Comments

  • কলাম