২১ মে ২০১৯ ৫:৮:৩৭
logo
logo banner
HeadLine
ফলের বাজার নজরদারিতে টিম গঠনে হাইকোর্টের নির্দেশ * পুনর্বিন্যাস করা হয়েছে মন্ত্রিপরিষদ: শফিউল আলম * কাল থেকে অফিস করবেন ওবায়দুল কাদের * জঙ্গি সনাক্তকরণের বিজ্ঞাপন সম্প্রীতি বাংলাদেশের নয়: পীযূষ * জনপ্রতি সর্বনিম্ন ফিতরা ৭০ টাকা * সুস্থ হয়ে দেশে ফিরলেন ওবায়দুল কাদের * হাইকোর্টের নির্দেশ, কোন মুক্তিযোদ্ধাকে ভুয়া বলে সম্বোধন করা যাবে না * 'গ্রুপ ২০'তে অভিষিক্ত হচ্ছে বাংলাদেশ * ইতালি যাওয়ার পথে ভূমধ্যসাগরে নৌকাডুবিতে নিহত ২৭ বাংলাদেশির পরিচয় শনাক্ত * বর্তমানে দেশে দারিদ্র্যের হার ২১ দশমিক ৮ শতাংশ * এখনো বিক্রি হচ্ছে নিষিদ্ধ সেই ৫২ পণ্য * এসিআই, তীর, রুপচাঁদা, প্রাণসহ ১৮টি কোম্পানীর ৫২টি মানহীন খাদ্যপণ্য বিক্রি বন্ধে হাইকোর্টের নির্দেশ * বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট দিয়ে সম্প্রচার শুরু হচ্ছে আজ * ১৫ মে দেশে ফিরছেন ওবায়দুল কাদের * লন্ডন সফর শেষে দেশে ফিরলেন প্রধানমন্ত্রী * সৌদি আরবের প্রস্তাবিত ৩৫ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ আনার প্রক্রিয়া শুরু * বিশ্বের কোথাও মুসলিমরা রোজা রাখছেন ২৩ ঘণ্টা আবার কোথাও সাড়ে ৯ ঘন্টা * খাদ্যের মান নিয়ন্ত্রণের প্রশ্নে বিএসটিআই'র কাজে হাইকোর্টের অসন্তোষ * খাদ্যে ভেজাল ও দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে জিরো টলারেন্স, জনগণকে স্বস্তি দিতে প্রথম রমজান থেকেই অভিযান শুরু * বেসরকারী টেলিভিশনে সংবাদ প্রচারের সময় কোন বিজ্ঞাপন নয় - হাইকোর্ট * পদ্মায় বসল ১২তম স্প্যান, দৃশ্যমান ১৮শ' মিটার * চলে গেলেন সুবীর নন্দী * পবিত্র রমজান মাসের চাঁদ দেখা গেছে, কাল থেকে রোজা শুরু * এস এস সি'তে পাসের হার ৮২.২০% * এসএসসির ফল আজ * প্রধানমন্ত্রীর চোখের অস্ত্রোপচার সম্পন্ন * ফণি' দুর্গতদের দ্রুত ত্রাণ দেয়ার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর * ক্রমশ দুর্বল হয়ে পড়ছে ফণি, বিভিন্ন জেলায় ৫ জনের মৃত্যু, বন্দরসমূহে ৩ নং সতর্ক সংকেত * খর্ব শক্তির ফণি'র মূল অংশ সকালে বাংলাদেশে প্রবেশ করতে পারে * উড়িষ্যা তাণ্ডব চালিয়ে পশ্চিমবংগ হয়ে বাংলাদেশের পথে ফণী' *
     11,2019 Thursday at 07:52:55 Share

তিন লাখ টাকা মুক্তিপনের জন্য ডেমরার মাদ্রাসাছাত্র শিশু মিনরকে হত্যা করে মাদ্রাসার অধ্যক্ষ

তিন লাখ টাকা মুক্তিপনের জন্য ডেমরার মাদ্রাসাছাত্র শিশু মিনরকে হত্যা করে মাদ্রাসার অধ্যক্ষ

অবশেষে ডেমরায় আট বছরের শিশু মনির হোসেনকে হত্যার পর লাশ বস্তায় ভরে ফেলে দেয়ার চাঞ্চল্যকর রহস্য উদ্ঘাটন করতে সক্ষম হয়েছে পুলিশ। মাত্র তিন লাখ টাকার জন্য শিশু মনিরকে নির্মম নির্যাতনের পর হত্যা করা হয়। আর তিন লাখ টাকার জন্য মনিরেরই শিক্ষক নূর-ই মদিনা মাদ্রাসার অধ্যক্ষ হত্যাকাণ্ডটি ঘটায়। হত্যাকান্ড সহযোগিতা করে তার দুই ছাত্র। পুলিশ ওই অধ্যক্ষ ও দুই মাদ্রাসা ছাত্রকে গ্রেফতার করেছে। গ্রেফতারকৃতরা জিজ্ঞাসাবাদে এমন চাঞ্চল্যকর তথ্য দিয়েছে। শিক্ষকের হাতে ছাত্র খুনের ঘটনায় পুরো এলাকায় তোলপাড় চলছে। স্থানীয়রা তাদের সন্তানকে আর ওই মাদ্রাসায় পড়াবেন না বলে জানিয়েছেন।


ডিএমপির মিডিয়া বিভাগের অতিরিক্ত উপকমিশনার ওবায়দুর রহমান জানান, গত ৮ এপ্রিল বিকেল পাঁচটার দিকে ডেমরা থানাধীন মসজিদুল-ই-আয়েশা জামে মসজিদের দ্বিতীয় থেকে তৃতীয় তলায় উঠার সিঁড়ির চৌকিতে সিমেন্টের বস্তার ভেতর থেকে রশি দিয়ে পেঁচানো অবস্থায় শিশু মনিরের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। মসজিদের ভেতর থেকে শিশুর লাশ উদ্ধারের ঘটনা ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করে। মনির স্থানীয় নূর-ই-মদিনা মাদ্রাসার প্রথম শ্রেণীর ছাত্র ছিল। এ ঘটনায় মনিরের পিতা সাইদুর রহমান বাদী হয়ে ডেমরা থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।


হত্যাকান্ডে জড়িতদের গ্রেফতারে ডেমরা জোনের জ্যেষ্ঠ সহকারী পুলিশ কমিশনার রবিউল ইসলামের নেতৃত্বে সাঁড়াশি অভিযান চলতে থাকে। তারই ধারাবাহিকতায় গত ৯ এপ্রিল রাতে হত্যাকান্ডে  জড়িত থাকায় নূর-ই- মদিনা মাদ্রাসার অধ্যক্ষ আবদুল জলিল হাদী ওরফে হাদিউজ্জামানকে গ্রেফতার করা হয়। তার দেয়া তথ্য মোতাবেক হত্যাকান্ডে  সহযোগিতা করায় তারই মাদ্রাসার দুই ছাত্র মোহাম্মদ তোহা ও আকরাম হোসেনকে গ্রেফতার করা হয়।


বুধবার ডিএমপির মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে ওয়ারী বিভাগের পুলিশের উপকমিশনার ফরিদ উদ্দিন শিশু মনির হত্যার আদ্যোপান্ত রহস্য বর্ণনা করেন। তিনি বলেন, নিহত আট বছর বয়সী শিশু মনির হোসেনের পিতার নাম সাইদুর রহমান। তিনি পরিবার নিয়ে ডেমরা থানাধীন ডগাইর নতুন পাড়ায় বসবাস করেন। মনিরের বড় দুই বোন হচ্ছে ফাতেমা আক্তার (১২) ও মুন্নি আক্তার (৯)। মনির সবার ছোট ছিল। মনির ডগাইর নতুনপাড়ার নূর-ই মদিনা মাদ্রাসার প্রথম শ্রেণীর ছাত্র ছিল।


অন্যদিনের মতো গত ৭ এপ্রিল সকাল সাতটায় মনির মাদ্রাসায় যায় পড়তে। বেলা এগারোটা বাজার পরও মনির বাড়িতে না গেলে বাড়ির লোকজন খোঁজখবর নেয়া শুরু করে। পরিবারের সবাই মনিরকে আশপাশের এলাকায় খুঁজতে থাকে। না পেয়ে এলাকায় মাইকিং করে। ওইদিনই ডেমরা থানায় একটি নিখোঁজের জিডি করে পরিবারটি।


ওই রাতেই অজ্ঞাত একটি মোবাইল নম্বর থেকে মনিরের পিতার কাছে ফোন আসে। একটি পুরুষ কণ্ঠে মনিরের মুক্তিপণ হিসেবে তিন লাখ টাকা দাবি করা হয়। মুক্তিপণের টাকা ডেমরা থানাধীন মসজিদুল-ই-আয়েশা জামে মসজিদের ভেতরে থাকা মরদেহ রাখার খাটিয়ার নিচে রেখে আসতে বলা হয়। টাকা না দিলে ছেলের লাশ পাবে বলে হুমকি দেয়া হয় মোবাইল ফোনে।


মনিরের পিতা ঘটনাটি ডেমরা থানা পুলিশকে জানায়। বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে নিয়ে মনিরকে উদ্ধারে অভিযান চালানো হয়। মনিরের পিতা আর প্রযুক্তির মাধ্যমে পাওয়া তথ্য মোতাবেক পরদিন ৮ এপ্রিল মনিরের বস্তাবন্দী হাত-পা বাঁধা লাশ ডেমরার মসজিদুল-ই-আয়েশা জামে মসজিদের ভেতরে থেকে উদ্ধার করা হয়।


পরদিন ৯ এপ্রিল নূর-ই-মাদ্রাসার অধ্যক্ষ আব্দুল জলিল হাদী ও তারই ছাত্র আহাম্মদ সফি ওরফে তোহাকে আটক করা হয়। তারা হত্যার দায় স্বীকারে করে। তাদের দেয়া তথ্য মোতাবেক হত্যাকান্ডে  সহযোগিতা করার দায়ে রাজধানীর বংশাল থানাধীন মালিটোলা এলাকা থেকে নূর-ই-মদিনা মাদ্রাসার আরেক ছাত্র আকরামকে গ্রেফতার করা হয়।


গ্রেফতারকৃতরা হত্যাকান্ডে র দায় স্বীকার করে। খুনীদের দেয়া তথ্য মোতাবেক তাদেরই কাছ থেকে হত্যাকান্ডে  ব্যবহৃত একটি পাতলা তোয়ালে, দুটি সিমেন্টের বস্তা, দুটি কালো রঙের দড়ি, সিমসহ একটি মোবাইল সেট, মৃতদেহের পরনে থাকা গ্যাবারডিন রঙের ফুলপ্যান্ট ও পাঞ্জাবি উদ্ধার করা হয়। শিশু মনিরকে মুক্তিপণের জন্য অপহরণ করার পর তার ওপর পাশবিক নির্যাতন হয়েছে কিনা সে বিষয়টিও গুরুত্বের সঙ্গে তদন্ত করে দেখা হচ্ছে বলে জানান উপকমিশনার। জনকণ্ঠ ।


 

User Comments

  • সারাদেশ